চাকরি না পাওয়ায় প্রেমিকা হারাচ্ছে তরুণরা

by  ডেস্ক রিপোর্টার | | Wednesday 29th November 2017 |04:39 PM

চাকরি না পাওয়ায় প্রেমিকা হারাচ্ছে তরুণরা

'সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩০ থেকে বাড়ানো হচ্ছে না।' জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এর এই বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছেন যুবলীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী। তিনি বলেন, 'যুবকরা চাকরি না পাওয়ার কারণে প্রেমিকা হারাচ্ছেন, বিয়ের কথা পাকা হওয়া সম্পর্কগুলোও ভেঙে যাচ্ছে।
জনপ্রশাসন মন্ত্রীকে উদ্দেশ করে
যুবলীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা কেন বাড়ানো হবে না? সরকারি চাকরিতে বয়সের বেড়াজালে শিক্ষিত তরুণরা চাকরি পাচ্ছেন না। আর চাকরি না পাওয়ায় যুবকরা তাদের প্রেমিকাকে হারাচ্ছেন। শুধুমাত্র চাকরি না পাওয়ার কারণে বিয়ের কথা পাকা হওয়া সম্পর্কগুলোও ভেঙে যাচ্ছে। এটা অত্যন্ত দু:খজনক।'নগর ভবন প্রাঙ্গণে প্রয়াত মেয়র মোহাম্মদ হানিফের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন আয়োজিত স্মরণসভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন যুবলীগ সভাপতি। জনপ্রশাসন মন্ত্রীকে তিনি বলেন, 'প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল সরকারের আমলে প্রেমিকা হারানো কিংবা বিয়ে ভেঙে যাওয়া মতো ব্যাপার চলতে পারে না, চলতে দেয়া হবে না।

স্মরণ সভায় প্রধান হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সভাপতিত্ব করেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন। এছাড়াও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, 'লেখাপড়া শেষ করতে করতেই বয়স শেষ হয়ে যাচ্ছে। তাহলে উচ্চ শিক্ষিত বেকার তরুণরা কোথায় যাবেন? জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সাহেব গত ২০ নভেম্বর সংসদে বলেছেন, 'সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩০-এর বেশি বাড়ছে না।' আমি মন্ত্রীর এই মতের ব্যাখ্যা জানতে চাই। আমি নিজে ৩০ বছর বয়সীদের হতাশা দেখেছি। আপনি ৩০ এর বেশি বয়সীদের বেদনা দেখেছেন?'সীমাবদ্ধ সুযোগের কাছে পরাজিত হচ্ছে যুবকরা উল্লেখ করে যুবলীগের প্রভাবশালী এই নেতা বলেন, 'আজ কোন সে কারণে তরুণ সমাজ শিক্ষা শেষে পরিবার ও দেশের সম্পদ হওয়ার বদলে বোঝা হয়ে যাচ্ছে, আপনাকে এর উত্তর দিতে হবে। আমাদের সিস্টেমের আইনের মারপ্যাচে সীমাবদ্ধ সুযোগের কাছে বছরের পর বছর পরাজিত হচ্ছে তরুণরা।'নিজের যুক্তি তুলে ধরে ওমর ফারুক বলেন, কাগজে-কলমে ২৩ বছরের শিক্ষাজীবন শেষ হয়ে যাওয়ার কথা থাকলেও ২৭-২৮ বছরের আগে কোনো ছাত্রের পড়ালেখা শেষ হয় না। আপনি উন্নত বিশ্বের দিকে তাকান, ওইসব দেশে চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে বয়সের কোনো সীমারেখা নির্দিষ্ট নেই। কোনো কোনো দেশে তো অবসরের আগের দিন পর্যন্ত চাকরিতে প্রবেশের ব্যবস্থা আছে। তাহলে এদেশের তরুণরা কেন বয়সের বেড়াজালে বন্দী হবে।'নিজের যুক্তি তুলে ধরে ওমর ফারুক বলেন, কাগজে-কলমে ২৩ বছরের শিক্ষাজীবন শেষ হয়ে যাওয়ার কথা থাকলেও ২৭-২৮ বছরের আগে কোনো ছাত্রের পড়ালেখা শেষ হয় না। আপনি উন্নত বিশ্বের দিকে তাকান, ওইসব দেশে চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে বয়সের কোনো সীমারেখা নির্দিষ্ট নেই। কোনো কোনো দেশে তো অবসরের আগের দিন পর্যন্ত চাকরিতে প্রবেশের ব্যবস্থা আছে। তাহলে এদেশের তরুণরা কেন বয়সের বেড়াজালে বন্দী হবে।'বিভিন্ন উদাহরণ টেনে যুবলীগ সভাপতি বলেন, 'আপনি দেখুন, ভারতের পশ্চিমবঙ্গে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৪০ বছর। অন্যান্য রাজ্যে ৩৮-৪০ বছর। এছাড়াও শ্রীলঙ্কায় ৪৫, ইন্দোনেশিয়ায় ৩৫, ইতালিতে ৩৫, ফ্রান্সে ৪০, ফিলিপাইন, তুরস্ক, সুইডেনে যথাক্রমে সর্বনিন্ম ১৮, ১৮ এবং ১৬ বছর। যুক্তরাষ্ট্রের রাজ্যসভায় সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সের সীমা ২০ থেকে ৫৯ lবছর। কানাডার ক্ষেত্রে ২০ থেকে ৬৯ বছর। আমাদের দেশে বিষয়টি বিবেচনা করলে সমস্যা কোথায়।

মন্তব্য
  1. image
    Aaron Miller

    good
    2 min

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন