?????????কিপূর???ণ প???রবালদ???বীপ সেন???টমার???টিন

by  ডেস???ক রিপোর???টার | | Saturday 18th November 2017 |04:24 PM

?????????কিপূর???ণ প???রবালদ???বীপ সেন???টমার???টিন

প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিন যেটি হয়ে প্রতিদিন স্থানীয়দের পাশাপাশি হাজারো পর্যটক  চলাচল করছেন।অথচ দীর্ঘ দিন ধরে এই জেটির সংস্কার ও উন্নয়নে কোনো পদক্ষেপ নেই।অবজ্ঞার শিকার এই জেটি যেকোনো সময় ধসে পড়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

 স্থানীয় ইউপি সদস্য হাবীব খান জানান, সেন্টমার্টিন জেটিকেন্দ্রিক সরকার কোটি টাকা রাজস্ব পাচ্ছে। ব্যবসা করছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। আসছে পর্যটকবাহী জাহাজ। এই জেটি হয়ে প্রবেশ করছেন নানান দেশের পর্যটক। তার মতে, সেন্টমার্টিনের পুরনো এই জেটির প্রাণ যায় যায় অবস্থা। যেকোনো সময় ধসে পড়তে পারে। ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। সময় থাকতে পরিকল্পনা নেয়া দরকার।হাবীব মেম্বার জানান, জেটির বিষয়ে বহুবার কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলেও মেরামতের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি, যা খুবই দুঃখজনক।তিনি মনে করেন, ঝুঁকিপূর্ণ জেটির কারণে সেন্টমার্টিন থেকে পর্যটক বিমুখ হয়ে যাবেন। বিপর্যয় এড়াতে আপাতত রেলিংগুলো হলেও মেরামতের ব্যবস্থা করা দরকার।স্থানীয়রা জানান, এই জেটিতে দৈনিক পাঁচটি জাহাজ ভেড়ানো হয়। প্রতি জাহাজে অন্তত ৩০০ যাত্রী থাকেন। পর্যটন মওসুমে প্রতি জাহাজের যাত্রী বাড়ে দ্বিগুণের চেয়ে বেশি। এমন অবস্থায় দ্বীপের একমাত্র জেটিটি সংস্কার করা না হলে বহু হতাহতের ঘটনা ঘটতে পারে।এলজিইডির তত্ত্বাবধানে প্রায় চার কোটি টাকা ব্যয়ে ২০০২-০৩ অর্থবছরে এই জেটি নির্মাণ করা হয়। ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় সিডরের আঘাতে সেন্টমার্টিনের জেটির তিনটি গার্ডার ও রেলিং ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এখনো গার্ডার ও রেলিং সংস্কার করা হয়নি।সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূর আহমদ জানান, টেকনাফ-সেনটমার্টিন যাত্রায় দমদমিয়ায় বিভিন্ন জাহাজের নির্দিষ্ট জেটি রয়েছে। কিন্তু সেন্টমার্টিন থেকে ফেরার পথে শুধু জেলা প্রশাসন কর্তৃক নির্মিত জেটিতে সব জাহাজ তীরে ভেড়ান। সবাই একটি জেটি দিয়েই টেকনাফের উদ্দেশেই রওনা করেন।

 তিনি জানান, সিডরের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত জেটি দিয়ে জাহাজে ওঠানামার সময় পর্যটকেরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। এটি দ্রুত সংস্কারের ব্যবস্থা করা দরকার।

মন্তব্য
  1. image
    Aaron Miller

    good
    2 min

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন