দলনেত্রী ছাড়া নির্বাচনে যাবে না বিএনপি

by  ডেস্ক রিপোর্টার | | Sunday 22nd July 2018 |08:01 PM

দলনেত্রী ছাড়া নির্বাচনে যাবে না বিএনপি

ঢাকার নয়া পল্টনে শুক্রবার বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এক সমাবেশ থেকে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শর্ত দেন, বাংলাদেশে নির্বাচন করতে হলে অবশ্যই এক নম্বর পূর্বশর্ত হচ্ছে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। দীর্ঘ আড়াই বছর পর কাল তারা এই শর্ত দেন।

বিএনপির দাবিগুলো তুলে বলে এই সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, সংসদ ভেঙে দিতে হবে এবং নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে। তারা চান নির্বাচনের সময়ে যাতে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়। এদেশের মানুষ  বেগম জিয়াকে কারাগারে রেখে কোনো নির্বাচন হবে না দাবি তুলে ফখরুল ইসলাম বলেন, “আমরা খুব স্পষ্ট দাবি বলে দিয়েছি, বাংলাদেশে নির্বাচন করতে হলে অবশ্যই এক নম্বর পূর্বশর্ত হচ্ছে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। তাকে এবং তা হতে দেবে না।”

নির্বাচনের আগে সিপিবি, বাসদ, গণসংহতি আন্দোলনসহ আটটি বাম দল মিলে নতুন জোট গঠন করায় তাদের অভিনন্দন জানান ছাত্রজীবনে বাম রাজনীতি করে আসা ফখরুল। তিনি বলেন, “আজকে আনন্দের কথা। আমি অভিনন্দন জানাতে চাই, আটটি বাম রাজনৈতিক দলকে, তারা মোর্চা গঠন করেছে। জনগণের এই ইস্যুগুলোকে তারা দাবি হিসেবে সামনে নিয়ে এসেছে।

এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের সাজার রায়ের পর গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে খালেদা জিয়াকে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরাতন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হলে তিনি
সেখানে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন দাবি করে তার দলের নেতা কর্মীগণ। এরপর থেকেই তাকে মুক্তি দিয়ে ঢাকার বেসরকারি একটি হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়ে আসছেন তারা।

সর্বশেষ ২০১৬ সালের ৫ জানুয়ারি দলটি নয়া পল্টনে সমাবেশ করেছিল। খালেদা জিয়ার ‘মুক্তি ও সুচিকিৎসার’ ব্যবস্থা করার দাবিতেই দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এই সমাবেশ করে বিএনপি। আদালতের সাজায় খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর বিএনপি সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও নয়া পল্টনে সমাবেশ করার জন্য বেশ কয়েকবার অনুমতি চেয়েও ব্যর্থ হয়। শুক্রবার বিএনপিকে সমাবেশের জন্য ২৩টি শর্ত দেওয়া হয় ঢাকা মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে।

এ সমাবেশ ঘিরে সকাল থেকেই নয়া পল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নেতা-কর্মীদের আনাগোনা শুরু হয়। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি সম্বলিত বিশাল দুটি ডিজিটাল ব্যানার টানানো হয় কার্যালয়ের সামনে। তবে শর্তের কারণে নেতাকর্মীরা সমাবেশে আসতে শুরু করেন দুপুরে জুমার নামাজের পর। বেলা আড়াইটার দিকে নেতা-কর্মীরা ফকিরাপুল থেকে কাকরাইলের নাইটিঙ্গেল মোড় পর্যন্ত সড়কের দুই ধারে অবস্থান নিলে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

সমাবেশে উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ফখরুল বলেন, “আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান সাহেব, যিনি নির্যাতিত হয়েছেন এবং নির্বাসিত হয়ে আছেন, তিনি আপনাদেরকে অভিনন্দন জানিয়েছেন এই সমাবেশের জন্য। আপনারা সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে এসেছেন। এই ধারা অটুট রাখবেন।”

জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে আন্দোলন গড়ে তোলার প্রত্যয় জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “এরপরে যে কোনো কর্মসূচিতে এভাবে ঐক্যবদ্ধ হয়ে অংশ গ্রহণ করবেন, সেটাই হবে আমাদের মুক্তির পথ।”

সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন সরকারকে স্বৈরাচারী উল্লেখ করে বলেন, “সোজা আঙ্গুলে ঘি উঠবে না। আমাদের বিশ্বাস, সকল জাতীয় শক্তি ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে এই সরকারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে, বিএনপি জনগণকে সাথে নিয়ে রাস্তায় থাকবে। ইনশাল্লাহ এই সরকারের পতন ঘটবে।”

আগামীকাল সরকারি দল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করবে বলে জানান স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য মওদুদ আহমদ। তিনি বলেন, “সরকারি খরচে সরকারি আমলারা এই জনসভার ব্যবস্থা করবেন। দেখাবেন বিশাল জনসভা। অর্থপূর্ণ নির্বাচন করতে চাইলে ‘সব দলের জন্য সমান সুযোগ’ সৃষ্টির দাবি জানান এই বিএনপি নেতা।

স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, “আমাদের একটাই উদ্দেশ্য, দেশনেত্রীর মুক্তি চাই, তাকে নিয়েই আমরা নির্বাচনে যাব। কেউ যদি মনে করেন ফাঁকা মাঠে গোল দেবেন- সেই আশা করবেন না।”

মির্জা ফখরুলের সভাপতিত্বে এ সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমানউল্লাহ আমান, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, জয়নুল আবদিন ফারুক, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের কাজী আবুল বাশার, আহসানউল্লাহ হাসান, যুবদলের মোরতাজুল করীম বাদরু, নুরুল ইসলাম নয়ন, এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন,রফিকুল ইসলাম মজনু, স্বেচ্ছাসেবক দলের শফিউল বারী বাবু, আবদুর কাদের ভুঁইয়া জুয়েল, শ্রমিক দলের নুরুল ইসলাম খান নাসিম, জাসাসের হেলাল খান, ছাত্রদলের রাজীব আহসান, আকরামুল হাসান, এজমল হোসেন পাইলট বক্তব্য রাখেন।

মন্তব্য
  1. image
    Aaron Miller

    good
    2 min

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন